অন্যের জন্য প্রশান্ত

প্রশান্ত দাস। পেশায় একজন পান-সুপারির দোকানদার। দুই সন্তান আর স্ত্রী নিয়ে তার সুখের সংসার। মেয়েটি পড়ে ক্লাশ সেভেনে আর ছেলেটি মাত্র ক্লাশ ওয়ানে।প্রশান্ত নিজেও একজন শিক্ষিত সচেতন ব্যক্তি। করেছেন ইন্টারমেডিয়েট পাশ।এরপর বাবার সাথে পরিবারের হাল ধরেন।বন্ধ রাখতে হয় পড়াশুনা। প্রশান্ত তার বাবার পরিবারে পাচঁ বোনের এক ভাই ছিলেন।তার বাবা পানের ব্যবসা করতেন। বোনদের বিয়ে তাদের অনেক টাকা খরচ করতে হয়। আট জনের পরিবারে তার বাবা ছিল একমাত্র উপার্যনক্ষম।তার বাবার একার পক্ষে পরিবারের খরচ মিটানো সম্ভব ছিল না। তাই তিনি ইন্টারমেডিয়েট পাশ করে বাবার সাথে পানের ব্যবসা শুরু করেন।এরপর একে একে বোনদের বিয়ে দেন। তাদের কিছু পানের বড়(বাগান) ছিল। সেগুলোর পান তুলে সাজিতে করে বাবার সাথে বাজারে বিক্রি করেতেন। এভাবে বাবার সাথে দশ বছর পান বিক্রি করেন। বোনদের বিয়ে দেয়ার পর […]

“পড়তে এসে অন্ধকার জগতে হারিয়ে যাচ্ছি”

“আকাশচুম্বি স্বপ্ন নিয়ে ভর্তি হয়েছি জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে। ভর্তি হওয়ার পর থাকার জায়গা হলো গণরুমে। এক সঙ্গে গাদাগাদি করে থাকতাম প্রায় দেড়শ শিক্ষার্থী। রাত ১২টা থেকে চলতো সিনিয়র শিক্ষার্থীদের ব্যবহার শেখানোর নামে রেগিং। যা কোনভাবেই সহ্য করতে পারতাম না। যার কারণে রাতে ঠিক ভাবে ঘুম হতোনা। মনে সব সময় হতাশা আর অশান্তি কাজ করতো। জীবনে কখনো সিগারেট খাইনি, কিন্তু তখন একবিন্দু সুখের আশায় এক বন্ধুর পরামর্শে প্রথম সিগারেটে টান দিই। যা আমার জীবনে কাল হয়ে দাঁড়ায়।পড়তে এসেছিলাম,  এখন মাদক না নিলে সব কিছু এলোমেলো লাগে।” এভাবেই বলছিলেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ৩য় বর্ষের এক মাদকাসক্ত এক শিক্ষার্থী। এমন শত শত শিক্ষার্থী ‘মাদকে’র ভয়াল থাবায় হারিয়ে ফেলছে তাদের স্বপ্ন। যার কারণে তাদের মাঝে ঘটছে নৈতিকতার অবক্ষয়। জড়িয়ে যাচ্ছে চুরি, ছিনতাইসহ বিভিন্ন অপকর্মে। যার ফলে […]

“এখনো বয়স হয়নি তাই লাইসেন্স করতে পারিনি”

উলানিয়া থেকে মোটর সাইকেলে উঠলাম পাতারহাট যাওয়ার জন্য। ভাড়া নিয়েছে ৬০ টাকা্। মোটর বাইকে  সাধারনত তিনজন করে যাত্রী নেয়। ড্রাইভারসহ মোট চারজন। রাস্তার অবস্থা খূবই বাজে। তবুও মানুষ জীবনের ঝূকি নিয়ে হুন্ডায় যাতায়াত করে।উলানিয়া টু পাতারহাট দশ কিলোমিটার। দশ কিলোমিটারের মধ্যে দুই কিলোও রাস্তা ভালো নেই। আমার ভাগ্য ভালো অন্যকোন যাত্রী ছিল না তাই আমাকে একাই পাতারহাট নিয়ে আসে।আসতে আসতে চালকের সাথে কথা বললাম।ওনার নাম মোহাম্মদ আফসার। বয়স হবে বিশ। গাড়ি চালান প্রায় পাঁচ বছর হলো। ন্যাশনাল আইডি কার্ড হয়নি তাই এখনো লাইসেন্স করতে পারেন নি।হুন্ডার লাইসেন্স আছে কিন্তু ড্রাইভিং লাইসেন্স নেই।আফসার এর মত এরকম প্রায় ৯০% চালকদেরই লাইসেন্স নেই। অনেকে কখনো স্কুলেই যায়নি তাই লাইসেন্স ও করতে পারছে না। চাচার গাড়ি ছিল তাই ছোট বেলায় স্কুলে না গিয়ে মোটর […]

অনিশ্চিত অন্ধকারের দিকে তাদের যাত্রা রোহিঙ্গা শরনার্থী ক্যাম্পে কেমন আছেন তারা?

উখিয়া ও টেকনাফে কয়েকদিন ধরে আসা রোহিঙ্গা শরনার্থীতে গিজগিজ করছে। বিভিন্ন সংস্থা, এনজিও ও সংগঠন ক্যাম্পে ত্রান নিয়ে যাচ্ছে। টিভি খুললেই সরাসরি সম্প্রচার দেখতে পাচ্ছিলাম । ফেইসবুকেও বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনের চাঁদা ও ত্রাণ দেওয়ার ছবি দেখেছি। বার্মার সীমান্তে অগ্নি সংযোগ সহ বিভিন্ন ধরনের নির্যাতনের ছবি দেখতে পাচ্ছিলাম। এই কয়েকদিনে সীমান্ত দিয়ে মানুষের ঢল এর কথা শুনে আসছিলাম। ১০ সেপ্টেম্বর সকাল ১০ টায় কক্সবাজার বাস টার্মিনাল থেকে আমরা কয়েকজন মিলে রওয়ানা দিলাম কুতুপালং বালুখালী ক্যাম্পের উদ্দেশ্যে । উখিয়া এর আগে আমার কয়েকবার যাওয়া হয়েছে । যাওয়ার পথে রাস্তার দুইপাশে সবুজ বন পাহাড় মনকে মুহূর্তেই প্রশান্ত করে দেয় । জানলার পাশে বসে সবুজ প্রকৃতি আর কৃষকের মাঠে কাজ দেখতে দেখতে যাচ্ছিলাম। রাস্তায় কাজ করে যাচ্ছে কিছু শ্রমিক প্রধানমন্ত্রী আসবেন এই উপলক্ষে । […]

জুলেখার যত ভয়

নীলফামারীর ডিমলার রায়পুর গ্রামের জুলেখা ( ছদ্মনাম )আব্দুল গফুরের( ছদ্মনাম) মেয়ে। জুলেখা বলতে আব্দুল গফুর অজ্ঞান। জুলেখা যা বলে যা চায় আব্দুল গফুর তাই করে। টাকা পয়সা না থাকলে, ধার কর্জ করে হলেও, পরী’র সব চাহিদা সে পূরণ করে। জুলেখা মাত্র ক্লাস এইটে পড়ে । ২০১৭ সালে ফাইনাল পরীক্ষা শেষ হওয়ার তিনদিন আগে জুলেখা বাড়ি ফিরে বলে সে আর পরীক্ষা দিবে না । গফুর সাহেব অবাক হন । মেয়ে তার মেধাবী । কেন পরীক্ষা দেবে না বললে কিছুই বলে ন । রাতে জুলেখার ভীষণ জ্বর আছে । গফুর সাহেবের স্ত্রী মাথায় জলপট্রি দেন । অষুধ দেন । পরদিন ভোরে জ্বর কমলে গফুর সাহেব বলেন , “ মা জুলেখা পরীক্ষাটা দিয়ে দে । অার মাত্র তিনদিন । নাহলে তোর একবছর লস […]

ছিলো শখ, হলেন তিনি সুখী

মন্টু মিয়া রাজধানীর মিরপুরের বাসিন্দা। এক বড় ভাইয়ের অনুপ্রেরণায় খরগোশ ও কবুতর পালন শুরু করেন। প্রায় পাঁচ বছর যাবত তিনি এগুলো পালন করছেন। প্রথমে শখের বশে পোষা শুরু করলেও বাণিজ্যিক চিন্তা মাথায় রয়েছে। ভবিষ্যতে বাণিজ্যিকভাবে কবুতর ও খরগোশ পালন করার ইচ্ছা রয়েছে।তিনি ৩ বছর যাবত খরগোশ পালন করছেন। একটি খরগোশ ১-২ মাস পর পর ৫-৬টি করে বাচ্চা দেয়। খরগোশ মূলত তৃণভোজী। এরা বাঁধাকপি, গাজর, শসা, ঘাস, শাক খায়। ফলে খাবারের খরচ খুবই কম। খরগোশের রোগ-ব্যাধি খুব কমই হয়ে থাকে।এছাড়া পাঁচ বছর আগে ছয়টি কবুতর দিয়ে শুরু করলেও বর্তমানে তার কবুতর ৩৫টি। কবুতরের রানীক্ষেত, ঠান্ডা, পালসহ অনেক ধরনের রোগ হয়ে থাকে। রোগাক্রান্ত হলে নিজেই চিকিৎসা করেন। কিছু কমন পদ্ধতি ব্যবহার বা মেডিসিন প্রদান করেন।তার বাসা থেকে ভেটেরিনারি চিকিৎসালয় দূরে হওয়ায় সেখানে […]

সোহাগের প্রথমে হতাশা, পরে আলোর ঝলকানি

আসাদুজ্জামান সোহাগ একজন সফল উদ্যোক্তা। তিনি আমার বড় ভাইয়ের বন্ধু । সেই হিসেবে তার জীবনের বাঁকে প্রথমে হতাশা পরে সাফল্য আমাকে অনুপ্রাণিত করে । অনেক পরিশ্রম করে আজ তিনি গ্রামের একজন সফল উদ্যোক্তা হিসেবে পরিচিতি লাভ করেছেন। তাকে দেখে অনেক যুবক আত্মকর্মসংস্থানের ব্যাপারে উৎসাহ পাচ্ছেন। মাদারীপুরের কালকিনি উপজেলার দড়িচর লক্ষ্মীপুর গ্রামের ছেলে আসাদুজ্জামান সোহাগ। ২০০১ সালে তিনি কালকিনি সৈয়দ আবুল হোসনে কলেজ থেকে বি.কম পাস করে বিদেশ যাওয়ার জন্য বিভিন্ন এজেন্সি ও দালালের মাধ্যমে অনেক টাকা খরচ করেন। সে চেষ্টায় ব্যর্থ হয়ে পরে দেশেই চাকুরির চেষ্টা করেন। তাতেও বিফল হয়ে হতাশায় ভুগতে থাকেন। সবশেষে কোন উপায় না দেখে বড় ভাই ও বাবা-মায়ের পরামর্শে ৪ বিঘা জমিতে পুকুর তৈরি করে মাছ চাষ শুরু করেন। কিন্তু লাভ আশানুরূপ না হওয়ায় তাতে আরও […]

কোয়েলেই কোটিপতি শামীম

ছেলেবেলায় বই পড়ে কোয়েল পাখির কথা জেনেছি। তখন থেকেই কোয়েল পাখি পোষার স্বপ্ন ছিল। কিন্তু জীবনের প্রয়োজনে বেছে নিতে হয় প্রবাস জীবন। এমন সময় বিদেশে বসেই টেলিভিশনে কোয়েল পাখি চাষ করে সফল হয়েছে এমন কয়েকটি প্রতিবেদন দেখে আমার উৎসাহ আরো বেড়ে যায়।’ এভাবেই স্বপ্ন বাস্তবায়নের গল্প বলছিলেন টাঙ্গাইলের সখীপুর উপজেলার কচুয়া গ্রামের সফল কোয়েল চাষি শামীম আল মামুন।তার সাথে আমার কথা হয় শাহবাগের আজিজ মার্কেটে । পরে সখীপুরে আমি উনার সাফল্যগাঁথা দেখতে যাই । শামীম বলেন, ‘৩০ শতক জমির ওপর গড়ে তুলি কোয়েলের খামার। ৫শ’ কোয়েলের বাচ্চা দিয়ে শুরু হয় সেই স্বপ্নের যাত্রা। এখন আমার খামারে কোয়েলের সংখ্যা প্রায় ২৫ হাজার। গড়ে তুলেছি কোয়েলের একটি হ্যাচারি।’ তিনি জানান, উপজেলার প্রাণিসম্পদ বিভাগের কর্মকর্তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করে জানতে পারেন বগুড়ায় কোয়েল পাখির […]

যেখানে গাছের কদমছাট দেয় হরিণ সুন্দরবন

খুলনা জেলার সুন্দরবন , যার সাথে কোন এলাকার বনের তুলনা হয় না। হবেই বা কেন , কারণ সে যে বৃহত্তম ম্যানগ্রোভ ফরেস্ট হিসেবে স্বীকৃতি পেয়েছে।সেখানে যতদূর চোখ যাবে দেখা যাবে নদীর কোল ঘেষে গড়ে উঠা সবুজের সমারোহ।তাছাড়া আরও দেখা মিলবে জলচর ও উভচর প্রাণীর দেখা।সাথে আরো থাকবে গা ছম ছম করা রোমাঞ্চকর অনুভূতি ও বনের মাঝে লুকিয়ে থাকা অজানা রহস্যর টান।ঘুরে বেড়ানোর জন্য সুন্দরবনের সকল এলাকাই আকর্ষণীয় তবে নিরাপত্তাজনিত কারণে সর্বত্র ঘুরে বেড়ানো সম্ভব নয়। প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের এই রাজ্যকে ঘুরে দেখার জন্য সেখানকার জাহাজগুলোতে ভেসে বেড়াতে হয় চার থেকে পাঁচ দিন।তবে বনের নির্দিষ্ঠ কিছু এলাকা দেখে ভ্রমণ এক বা দুই দিনে শেষ করা ও সম্ভব।জাহাজে ভেসে বেড়ানোর সময় আমরা দেখতে পাই নদীর তীরে গাছগুলোর পাতা খেয়ে সমান করে রেখেছে সেখানকার […]

ঘুষ আর জীবনের সহবস্থান

হুমায়ন। রিক্সাচালান বরিশালের জিয়া সড়ক এলাকায়।বয়স হবে ত্রিশের কাছাকাছি। বিয়ে করেছেন আট বছর হলো। দুই সন্তান আর স্ত্রীকে নিয়ে তার সংসার।রিক্সা চালান পাঁচ বছর হলো। অটোরিক্সা চালান দেড় বছর। প্যাডেলের রিক্সা ছেড়েছেন চালাতে খূব কষ্ট হয় তাই। গত বছর ত্রিশ হাজার টাকা ঋণ নিয়ে সাথে নিজের জমানো টাকা দিয়ে কিনেছেন আটোরিক্সা। সারাদিন ঠিকমত চালালে ভাড়া ভালোই পান। দিনশেষে ৪০০-৬০০ টাকা থাকে। ঋণের টাকার কিস্তি দেন প্রতি সপ্তাহে। বাকি টাকা দিয়ে বাসা ভাড়া ও সংসারের খরচ। সবকিছু চলে ভালোই। কিন্তু বিপত্তি বাঁধায় মাঝে মাঝে পুলিশ।ব্যাটারি চালিত আটোরিক্সা চালানোর অনুমতি নেই। তাই পুলিশে ধরলেই ৫০০ টাকা জরিমানা। একদিনে দুইবার ধরলে দুইবারই ৫০০ করে দিতে হয়।তিনি বলেন , “মামা প্যাডেলের রিক্সা চালানো আনেক কষ্ট। তারপর ভাড়া কম পাই।সংসার তো চালান লাগবো। তাই ঋণ […]