‘আব্বায় ভালা না মায়েরে খালি মারে’

সকাল সাড়ে ১১টা। ঢাকার সিএমএম আদালতের হাজিরা সেলে খেলছিল চার বছরের ছোট্ট একটি শিশু। আদালত প্রাঙ্গণে নানা বয়সী মানুষের ভিড় দেখে কৌতুহলি দৃষ্টিতে এদিক সেদিক তাকাচ্ছিল।

তোমার নাম কি? কার সঙ্গে এসেছো বলতেই পেছন ফিরে তাকিয়ে বললো, ‘আমার নাম আসিফ। মায়ের সাথে আইছি। আমার আব্বায় ভালা না মায়েরে খালি মারে।’

জাগো নিউজের এ প্রতিবেদকের সঙ্গে আলাপকালে আসিফের মা আসমা বেগম (২০) জানান, সাত বছর আগে তার বিয়ে হয় চাঁদপুরের গার্মেন্টস কর্মী আমিনের (২৬) সঙ্গে। বিয়ের কিছুদিন পর থেকে যৌতুকের জন্য মারধর করতো। সর্বশেষ ১১ সেপ্টেম্বর ৩০ হাজার টাকা দাবি করে স্বামী। টাকা দিতে না পারায় তাকে বেধড়ক মারধর করে আমিন।

তিনি আরো বলেন, এর দুইদিন পর আমিনের কর্মস্থল মিরপুর সাড়ে এগারোতে তার গার্মেন্টসে গেলেও তাকে মারধর করে। শুধু মারধর করেই ক্ষান্ত হয়নি, তাকেসহ তার বাবা, মা ও ভাইয়ের নামে চুরি মামলা দিয়েছে বলেও জানান তিনি। পরে তারা আজ বুধবার আদালতে এসে আত্মসমর্পণ করে জামিন নেন।

আসমার বাবা সিরাজ মোল্লা বলেন, ‘আমরা গরিব মানুষ। ফুতপাতে ডিম বিক্রি করি। এত টাকা কই পামু? যৌতুকের টাকা দিতে না পারায় জামাই আমার মে, স্ত্রী, ছেলে ও আমাকে পর্যন্ত মারধর করে। থানায় মামলা করতে গেলে মামলাও নেয়নি। উল্টো জামাই চুরির মামলা দিয়ে আমাদের আদালত পর্যন্ত আনছে।’

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।