ঘুরে দাড়িয়েছেন জাহানারা

তার নাম  জাহানারা। ময়মনসিংহ জেলায় বাড়ি তার।প্রায় ত্রিশ বছর আগে অনেক স্বপ্ন নিয়ে স্বপরিবারে ঢাকায় পাড়ি জমান তিনি। স্বামী ও দুই মেয়েকে নিয়ে ছোট্ট পরিবার তার। সাভারের ইসলামনগরে গড়ে তোলেন তার সুখের নিবাস। তার স্বামী রিকশা ভাড়া নিয়ে চালানো শুরু করেন। আর জাহানারা তার মেয়েদের দেখাশোনা আর ঘর সামলানোয় ব্যস্ত থাকতেন। স্বল্প আয়ে ভালোই চলছিল তাদের সংসার। কিন্তু হঠাৎ তাদের এই সুখে ছেদ ঘটে। এক দূর্ঘটনায় তার স্বামী পায়ে মারাত্মক আঘাত পান। সারা জীবনের জন্য রিকশা চালানোর ক্ষমতা হারায় তিনি।

ফলে ঘরকন্না ছেড়ে সংসারের হাল ধরতে হয় জাহানারাকে। তিনি জানতেন  না কিভাবে তার সংসারের ব্যয় বহন হবে। অন্যদিকে অসুস্থ স্বামীর চিকিৎসা। এই কঠিন অবস্থায় ভেঙে পড়েননি জাহানারা। সামান্য কিছু পুঁজি দিয়ে ব্যবসা শুরু করেন তিনি। ফলের ব্যবসা। পথের ধারে একটা ফলের টুকড়ি নিয়ে বসতেন। তখনকার দিনে চার আনা পয়সায় আমড়া বিক্রি করতেন। এখন থেকে প্রায় বিশ বছর আগের কথা। শুনছিলাম জাহানারার মুখ থেকেই তার অতীত জীবনের স্মৃতিচারণ।

জীবন সংগ্রামের অনেকটা পথ পাড়ি দিতে হয়েছে তাকে। মেয়ে দুটো বড় হয়েছে। বিয়েও দিয়েছেন। স্বামীর চিকিৎসা করিয়েছেন। এজন্য অবশ্য তাকে মানুষের কাছ থেকে ঋণ নিতে হয়েছে। যা এখনো তিনিএকটু একটু করে ব্যবসার টাকা দিয়ে শোধ করে যাচ্ছেন। জাহানারা মৌসুমী ফল বিক্রি করেন। গরমের সময় কাঁচা আম, তরমুজ, আনারস, বর্ষায় আমড়া, পেয়ারা, জাম্বুরা আর অন্য সময় বারমাসী ফল বিক্রি করে।দুই থেকে তিন হাজার টাকার ফল কিনে সাড়া সপ্তাহ জুড়ে বিক্রি করে । ফল কেনার টাকা বাদে সপ্তাহান্তে তার লাভ থাকে পনেরোশ থেকে আড়াই হাজার টাকা। এই দিয়ে চলছে তার নিত্যদিনের জীবন ও জীবিকা।

এখন জাহানারা স্বাবলম্বী। জীবনের মোড় ঘুড়ে দাঁড়াতে সক্ষম হয়েছেন তিনি। অনেক চড়াই উৎরাই পাড়ি দিয়ে জীবনযুদ্ধে জয়ী এক নারী জাহানারা।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।