মেয়েদের টয়লেট প্লেসের সমস্যা

This slideshow requires JavaScript.

৭০০ একর ভূমির ক্যাম্পাস জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়(জাবি)। বাংলাদেশের একমাত্র পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় যেখানে মেয়েদের জন্য আলাদা ৪৯% কোটা সংরক্ষিত। অথচ এই বিশ্ববিদ্যালয়ের পাবলিক প্লেসে মেয়েদের জন্য নেই আলাদা বাথরুমের ব্যবস্থা। জাবির পাবলিক প্লেসগুলোর মধ্যে টিএসসি, ট্রান্সপোর্ট ও বটতলা অন্যতম। গুরুত্বপূর্ণ এই জনবহুল স্থানগুলোতে মেয়েদের জন্য কোন পৃথক টয়লেটের ব্যবস্থা নেই। ফলে মেয়েদেরকে এজন্য বিভিন্ন সময় অস্বস্তিকর অবস্থায় পড়তে হয়। যেমন একজন মেয়ে বাথরুমে সামনে একজন ছেলে বাথরুম নক করছে।

প্রথমেই আসা যাক টিএসসিতে। এখানে ক্যাফেটেরিয়া ও মুক্তমঞ্চ থাকার কারণে এটি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণকেন্দ্র হিসেবে বিবেচিত। টিএসসিতে মোট আটটি টয়লেটের ব্যবস্থা থাকলেও সবার জন্য উন্মুক্ত দুটি টয়লেট। এর মধ্যে একটির দরজা ভাঙ্গা যা ব্যবহারের অনুপযোগী। আর বাকি ছয়টির ২টি প্রক্টরদের জন্য, ২টি বিভিন্ন সংগঠনের সদস্যদের জন্য, আর অন্য ২টি (নেম প্লেটে মেয়েদের জন্য ) মালিদের স্টোর রুম হিসেবে ব্যবহৃত হয়। বিশেষ করে মুক্তমঞ্চে যেদিন কোন অনুষ্ঠান থাকে সেদিন মেয়েদের খুব বাথরুম বিড়ম্বনায় পড়তে হয়।
এছাড়া ট্রান্সপোর্ট যেখানে ঢাকাগামী মেয়েদের বাসের জন্য অপেক্ষা ও শীতকালে অতিথি পাখি দর্শনার্থীদের জন্য ব্যস্ত একটি জায়গা। এখানেও দুটি গণবাথরুম থাকলেও নেই লাইটের ব্যবস্থা। ফলে এ দুটি বাথরুম মেয়েদের ব্যবহারের জন্য নিরাপদ নয়।
বটতলা জাবি ক্যাম্পাসের আরেকটি ব্যস্ত জায়গা যেখানে ছাত্রছাত্রী ও অতিথিদের জন্য খাবারের সুব্যবস্থা আছে। এখানে প্রতিদিন ১৫০০-২০০০ লোকের যাতায়াত হলেও এখানে গণবাথরুম মাত্র দুটি, যার একটি প্রভাবশালী মহল তালা দিয়ে বক্তিগতভাবে ব্যবহার করছে। ফলে একটি বাথরুম সকলের জন্য ব্যবহার কষ্টকর।
এ বিষয়ে টিএসসির উপ-পরিচালক নাসরীন সুলতানার সাথে কথা বললে তিনি বলেন যে কিছু ছাত্রছাত্রীদের অসচেতনতার কারণে টিএসসির মেয়েদের জন্য সংরক্ষিত টয়লেট দুটি তালাবদ্ধ রাখা হয়েছে আর টিএসসি ভবনের রুম সংকটের কারণে তা স্টোর রুম হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে।
মেয়েদের পৃথক টয়লেটের বিষয়ে জাবি মেডিকেল সেন্টারের প্রধান মেডিকেল অফিসার ডা. মোজেজা জহুরা বলেন মেয়েদের জন্য প্রাইভেসি খুবই গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। কারণ মেয়েদের বিশেষ দিনগুলোতে গণবাথরুম ব্যবহার স্বাস্থ্যের জন্য নিরাপদ নয়। এছাড়া ডা. মমতা মল্লিক বলেন, মেয়েরা তাদের প্রাইভেসির কারণে এসব অনিরাপদ গণটয়লেট ব্যবহার করতে পারছে না ফলে অনেক সময় তাদের প্রয়োজন পূরণ দীর্ঘক্ষণ নিয়ন্ত্রণ করতে হয়। এ অবস্থায় তাদের ইউরিন ইনফেকশন, ফাংগাল ইনফেকশন, কিডনি ড্যামেজ সহ ইত্যাদি নানা রকম শারীরিক রোগ হতে পারে।
এ বিষয়ে ক্যাম্পাসের অনেক ছাত্রীর সাথে কথা বললে তারা বলে, “আমাদের জন্য আলাদা টয়লেটের ব্যবস্থা নেই যা অনাকাঙ্ক্ষিত, বিশেষ করে মুক্তমঞ্চে কোন অনুষ্ঠানের দিন একটি বাথরুম ব্যবহার করতে আমাদের খুবই বিরক্তিকর অবস্থায় পড়তে হয়।”
তাই এ বিষয়ে কর্তৃপক্ষের সুদৃষ্টি পড়বে বলে ক্যাম্পাসের মেয়েরা আশা করছে।

 

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।