রংতুলির ক্যানভাসে জান্নাতের স্বপ্ন

পড়াশুনায় মেধার স্বাক্ষর রেখে কৃতিত্বের সাথে  উত্তীর্ণ হয়েছে প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষায়।  স্কলারশিপ ও পেয়েজান্নাত, প্রতিভা আর অদম্য সাহসিকতা এ দুয়ের এক অপূর্ব সম্মিলন ঘটেছে তার জীবনের গল্পে। ছে। বর্তমানে সপ্তম শ্রেনীতে অধ্যয়নরত জান্নাত। কারো সামনে নিরব থাকাটা যেন তার চরিত্রের বৈশিষ্ট। কিন্তু বাস্তবে বেশ কথাপটু আর চঞ্চলও বটে। এ মেয়েটির ছবি অাঁকাটা সখের রাজ্য। নিয়মিত পড়াশুনা করা আর ছবি আকাঁ, এ দুটিই যেন তার ধ্যান আর জ্ঞান। বলতে গেলে এগুলো নিয়েই তো তার জীবন চলা। খুব ছোট বেলা থেকেই সে ছবি আকঁতে ভালোবাসে। ছোট্ট জান্নাতের মনের ক্যানভাসে যেন শুধু ছবিই জায়গা করে নিয়েছে। রংতুলির ক্যানভাসে যেন আর কোনো কিছুই নেই। যখন থেকেই সে স্কুলে যেতে শুরু করল, তখনই মূলত তার ছবি আকাঁর হাতেখড়ি শুরু হল। এক মনে,এক প্রাণে সে ছবি আকেঁ। সে ছবি জীবনের, সে ছবি নির্মম বাস্তবতার,সে ছবি প্রাণের আকুলতার,স্বপ্ন পূরণের সকল লক্ষ্যই যেন রংতুলির ক্যানভাসে জায়গা করে নেয়।

কিন্তু, জীবনে চলার পথ তো আর সব সময় মসৃণ হয় না। জান্নাতদের সুখের সংসারে ও নেমে এলো নির্মম অন্ধকারের কালো অধ্যায়। জীবন সংসার থেকে বিদায় নেয় তার পিতা। জান্নাতদের ছিলো ছোট্ট সুখের সংসার। পিতার করুণ বিদায়ে সংসার হলো আরো ছোট। মা আর বড় এক বোন নিয়ে জান্নাতের জীবন চলা। মায়ের অকৃত্রিম ভালোবাসায় দু’বোনের স্বপ্ন পূরণের সাহস জোগায়। হয়তো মেঘে মেঘেই বেলা বাড়তো তাদের স্বপ্ন পূরণে। তারা সরে যেতে পারতো  তাদের স্বপ্ন থেকে দূরে, বহুদূরে।

তবে তা হয়নি – কৃতিত্বটা সম্পূর্ণ তাদের মায়ের।

দুঃখ সরিয়ে সুখের সঞ্চার হয়েছে জান্নাতদের সংসারে। দিনে দিনে বাড়ছে তাদের সুখ। যে সুখের অন্যতম একটি নিয়ামক জান্নাতের রংতুলির খেলা, রঙের খেলা, সৌন্দর্যের খেলা তথাপি শিল্পের খেলা।

তবে জান্নাত যেখানে ব্যতিক্রম, তা হলো তার এই নিপুণ রংতুলির খেলায় কোনো আর্ট স্কুলের নুন্যতম অবদান নেই। ছবি আকাঁ যেন তার প্যাশন। রংতুলির খেলায় তার ধ্যান,জ্ঞান। ছবিতে সে জীবন খুজে পাই। যে জীবন বাস্তবতার, অন্য অনেকের প্রতিচ্ছবি। ছবিতে জীবনের প্রতিচ্ছবি ফুটিয়ে তোলাতেই তার আনন্দ। যে আনন্দে সকলেই সমান অংশীদার। তার আনন্দ আরো বেড়ে গিয়েছে কৃতিত্বের স্মারক বিভিন্ন পুরষ্কার অর্জনের মাধ্যমে। অবশ্য এজন্যে কত কাঠখড় পোড়াতে হয়েছে তা শুধু জান্নাত’ই জানে। শুনতে হয়েছে মায়ের আদরের আড়ালের বিরক্তিকর বকাঝকা। কত বার মন খারাপ হয়েছে তারও কোনো হিসেব নেই। অবশ্য মন ভালো করতে সঙ্গ দিয়েছে অনুপ্রেরণাদায়ী তারই বড় বোন।

আমাদের তথাকথিত সামাজিক জীবন ব্যবস্থায় পিতৃহীন টানাপোড়নের সংসারে রংতুলির ছোঁয়ায় জীবন ও জগতের সন্ধান করা রীতিমতো প্রোপাগান্ডার শামিল। তবে জান্নাত ভেঙ্গে দিয়েছে তথাকথিত সামাজিক শৃঙ্খলার বন্ধন। সৃষ্টি করেছে এমন একটি গল্পের যেখানে জান্নাত নিজেই তার জীবনের গল্পের নায়ক। যে গল্প জীবনের, যে গল্প বাস্তবতার। জান্নাতের গল্পই হতে পারে শৃঙ্খলার বন্ধনে আবদ্ধ মুক্তিকামী নারীর প্রেরণা। জয় হোক জান্নাতদের, জয় হোক মানবতার।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।