বিভাগ: ছবি

পাতা কুড়ানিরা কেমন আছেন

ছবিতে এই পাতা কুড়ানি নারীদের বাড়ী সাভার উপজেলার জামসিং গ্রামে (জাবি ক্যাম্পাসের পিছনে) । এরা প্রতিবছর বসন্ত ও গ্রীষ্মের সময় আমাদের ক্যাম্পাসে পাতা ও শুকনো ডালপালা কুড়ায় ।পাতা রান্নার জন্য অনেক প্রসেস করতে হয়, প্রথমে পাতা কুড়ানো তারপর পাতা বাড়িতে নিয়ে আসা এবং সেই পাতা রোদে শুকানো, যা দিয়ে তারা রান্না করে , গ্রীষ্মের এই প্রচন্ড রোদে দু থেকে তিন মাস সারাদিন কষ্ট করে যে পরিমাণ পাতা ও অন্যান্য লাকড়ি কুড়ায় তা দিয়ে তাদের সারা বছরের রান্নার জ্বালানী হয় না , ফলে এত কষ্ট করার পরেও তাদেরকে আবার টাকা দিয়ে লাকড়ি কিনতে হয় । যা তাদের জন্য আর্থিক ও শারীরিকভাবে কষ্টকর এবং তারা যখন পাতা কুড়াতে আসে তখন তাদের সাথে তাদের বাচ্চারাও আসে ফলে শিশুদের শিক্ষায় ব্যাঘাত ঘটে । আজ […]

বোনের হুইলচেয়ারে জড়ানো শৈশব

সাভারে মনসুর প্লাজার নিচ থেকে ছবিটা নেওয়া হয়েছে। মেয়েটির নাম তাসলিমা হুইলচেয়ারে বসে থাকা এক প্রতিবন্ধী কিশোরী আর পাশে দাড়ানো দুইটি এই কিশোরীর ভাইবোন। যারা তার হুইল চেয়ার টানে। শারীরিক প্রতিবন্ধী এই কিশোরীর নাম তাসলিমা। কিশোরীর গরীব দিনমজুর বাবা দারিদ্র্যের চাপে শারীরিক ভাবে সুস্থ দুই সন্তানকে দিয়ে প্রতিবিন্ধী তাসলিমার জন্য ভিক্ষোয় নিয়োজিত করেছে। ফলে এই দুই শিশুর জীবন থেকে হারাতে বসেছে স্বাভাবিক শৈশব। বাস্তবতা বড় কঠিন। ওদের সঙ্গে কথা বলতে গেলে খুব বেশি আগ্রহ দেখায়না। তাদের নাম কিংবা কোথায় থাকে বা বাবার নাম বলে সময় নষ্ট করতে রাজী নয় তারা। যতক্ষণ কথা বলবে ততক্ষণে আরো কয়েকজনের কাছে যেতে পারবে বোনকে নিয়ে।  এই শিশু বয়সেই অনেক রুক্ষ হয়ে উঠেছে শিশু দুটোর কণ্ঠস্বর। ‘এত কথা কয়া কি হইব। ট্যাকা দিবেন?’ কিছু টাকা […]

গাছে পেরেক ঠোকা সাইনবোর্ড এবং কয়েক মিনিট বাতচিত

দুইটা রুটি, একটা কলা আর সিগারেট খেয়ে পকেট ফক্কা। মানে গড়ের মাঠ। প্রাথমিক কৌতুহল তৈরী হয়েছিল একই সাইনবোর্ড ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় কয়েকবার দেখে। তিতাস পাড়ের ব্রাক্ষণবাড়িয়া কিংবা আলাউদ্দিন খাঁর ব্রাক্ষণবাড়িয়াতে কি কাজে যাওয়া হয়েছিল তার বৃত্তান্ত অন্য কোন সময়ে বলা যাবে। কিন্তু যে কৌতুহল তৈরী হয়েছিল একই সাইনবোর্ডের কয়েকবার দর্শণে তা বিরক্তি এবং রাগসহ চরমে ওঠে সেই সাইনবোর্ড গাছে পেরেক ঠোকা অবস্থায় দেখে। এ জিনিসটা আমি একদমই নিতে পারিনা। ব্রাক্ষণবাড়িয়া রেলসেটশন থেকে ফিরব ডাউন ট্রেনে। ভৈরববাজার। ফোনে ফ্লেক্সি করার টাকা নাই। শেষে ইমার্জেন্সি ব্যালেন্স নিয়েই কল করি। রহস্যময় সেই সাইনবোর্ডে দেওয়া নম্বরে।  কেননা আমার মনে হয়েছে, একটা জিজ্ঞাসাবাদ না করে হজম করা যায়না ব্যাপারটা। সাইনবোর্ডে নাম লেখা ন্যাচারাল আর্টিস্ট। সাথে ফোন নাম্বার ০১৯২০১৪৬৬৪৮। নম্বরের পেছনের মানুষটি বাঘা কোন চিত্রশিল্পীও হতে পারেন! সেই […]