আমৃত্যু নৌকায় কাটে জীবন নৌকার ভেতরেই চলে রান্নাবান্না, খাওয়া-দাওয়া, ঘুম। নৌকাই ঘর, নৌকাই সংসার। শিশুরা নৌকাতেই জন্মগ্রহন করে নৌকাতেই বেড়ে ওঠে।

নৌকার ভেতরেই চলে রান্নাবান্না, খাওয়া-দাওয়া, ঘুম। নৌকাই ঘর, নৌকাই সংসার। শিশুরা নৌকাতেই জন্মগ্রহন করে নৌকাতেই বেড়ে ওঠে। নৌকাতেই বিয়ে হয় প্রাপ্তবয়স্কদের, গড়ে ওঠে নতুন সংসার। জীবিকা উপার্জনের মাধ্যমও নৌকা। নদীর যে পানিতে সারতে হয় প্রাকৃতিক কাজ সেখানেই হয় গোসল। আয়ু ফুরিয়ে গেলে নৌকাতেই ঘটে শেষ নি:শ্বাস ত্যাগ। কেউ মারা গেলে তাকে সমাধীস্থ করা হয় শহরের সরকারী কবরস্থানে। এমনটাই জীবন চিত্র চাঁদপুরের ডাকাতিয়া নদীতে বসবাসরত দুই শতাধিক বেদে পরিবারের। ডাকাতিয়া নদীর চাঁদপুর শহর অংশের কোস্টগার্ড স্টেশন থেকে প্রেসক্লাব ঘাট পর্যন্ত ৫শ মিটার এলাকা এবং চৌধুরীঘাট থেকে বিআইডব্লিউটিএ লঞ্চঘাট পর্যন্ত প্রায় ৪শ মিটার এলাকা জুড়ে এদের বসবাস। জানা গেছে, প্রায় ৬ যুগ সময় ধরে বংশপরম্পরায় এখানে নৌকায় বসবাস করছেন  ভূমিহীন এ পরিবারগুলো। নিজেদের বেপারী বংশ বলে পরিচয় দেন তারা। ধর্মে সবাই মুসলিম।  […]

লালনদর্শনে নরসিংদী মির্জাপুরে পালিত হলো তিনদিনব্যাপী বাউলমেলা ঠিক গত বছর এই দিনে এই মঞ্চে উপস্হিত ছিলেন হুমায়ূণ সাধু। মঞ্চে দাড়িয়ে সিঙ্গা বাজিয়ে অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করতেন তিনি।সেটি ছিল একরকম প্রার্থনা,ঠিক যেন আধ্যাতিকতার সাথে যোগাযোগ স্হাপণ ।এমনটিই বিশ্বাস ভক্তদের।আর সে বিশ্বাসের উপর প্রতিষ্ঠিত তাদের দর্শন। আজ তিনি শারিরীকভাবে অনুপস্হিত।আকড়ার উঠোনেই তাঁকে সমায়িত করা হয়।তবে ভক্তদের কাছে ভক্তদের মতে তিনি সেখানে উপস্হিত ছিলেন এবং ভাবজগতে তিনিও একাত্ব ছিলেন বিগত দিনগুলোর মতো।

নরসিংদী থেকে ফিরে (মিল্কী রেজা)   নরসিংদী খানাবাড়ি মির্জানগরে বাউল হুমায়ূণ সাধুর আকড়ায় গত ২৪ নভেম্বর থেকে ২৬ নভেম্বর উদযাপিত হয়ে গেল বাউল মেলা।সহস্রাধিক লোকের উপস্হিতিতে এ মেলা তিনদিন যাবৎ স্হায়ী ছিলো।সারাদেশের বিভিন্ন জায়গা থেকে লালন অনুসারী দর্শক এবং বাউল শিল্পীরা উপস্হিত ছিলেন এ আয়োজনে।দেশ খ্যাত টুনটুন বাউল সহ কুষ্টিয়া থেকে আগত বিভিন্ন মহিলা ও পুরুষ শিল্পীরা আসরকে আলোকিত করেছেন।প্রতি বছরই এই দিনে হুমায়ূণ সাধুর আকড়ায় এই আয়োজন হয়ে থাকে।লালন তিরোধানের চল্লিশা দিবস হিসেবে এই দিনটিকে আড়ম্বরভাবে পালন করে আসছিলেন হুমায়ূন সাধু ।এ বছরও তার কোন ব্যতিক্রম হয়নি।এবং সারাদেশ থেকে শত সহস্র দর্শক এবং গুরুভক্ত সাধুজন এসে উপস্হিত হন সেখানে। ঠিক গত বছর এই দিনে এই মঞ্চে উপস্হিত ছিলেন হুমায়ূণ সাধু। মঞ্চে দাড়িয়ে সিঙ্গা বাজিয়ে অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করতেন তিনি।সেটি ছিল […]

শিক্ষার্থীদের মেধা বিকাশে গণিত অলিম্পিয়াড সকাল থেকেই জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের জহির রায়হান অডিটোরিয়ামের সামনে জড়ো হতে থাকে সাভারের বিভিন্ন স্কুলের শিক্ষার্থীরা। সকলের হাতেই গণিতের বই। সবার চোখেমুখে আনন্দ ও ভয়ের ছাপ । আমিকি পারবো!কেউ বীজগণিতের সূত্রগুলো একটু দেখে নিচ্ছে, কেউবা একটু জ্যামিতি পড়ছে। একটু পরেই সকাল দশটায় শুরু হবে গণিত অলিম্পিয়াড।

সকাল থেকেই জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের জহির রায়হান অডিটোরিয়ামের সামনে জড়ো হতে থাকে সাভারের বিভিন্ন স্কুলের শিক্ষার্থীরা। সকলের হাতেই গণিতের বই। সবার চোখেমুখে আনন্দ ও ভয়ের ছাপ । আমিকি পারবো!কেউ বীজগণিতের সূত্রগুলো একটু দেখে নিচ্ছে, কেউবা একটু জ্যামিতি পড়ছে। একটু পরেই সকাল দশটায় শুরু হবে গণিত অলিম্পিয়াড। জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় সাইন্সক্লাব ২০-২১ শে অক্টোবর আয়োজন করে চতুর্থ বারের মতগণিত অলিম্পিয়াড-২০১৭। এবারের গণিত অলিম্পিয়াডের স্লোগানছিল “সমস্যায় ভাবনাযত’ গণিত নিয়ে ভাবততো” । সাভার,নবীনগর ও ঢাকা মেট্রোপলিটন এলাকার প্রায় পঞ্চাশটি স্কুলের তিনহাজারের বেশি শিক্ষার্থী এই অলিম্পিয়াডে অংশগ্রহণ করে।পরীক্ষার পদ্ধতি নিয়ে অলিম্পিয়াডের আহবায়ক ও বিশ্ববিদ্যালয়ের ইনিস্টিটিউট অব ইনফরমেশন টেকনোলজি বিভাগের চূড়ান্ত বর্ষেরশিক্ষার্থী ও লিউল্লাহ সাদ বলেন,পরীক্ষায় এমসিকিউ পদ্ধতিতে মোট ৫০ টি প্রশ্নখানেক ৫০ মার্কের।নির্ধারিত সময় একঘন্টা। সকাল ১০-১১ পর্যন্ত প্রথম শিফট এবং ১১:৪৫-১২:৪৫ দ্বিতীয় শিফটে পরীক্ষা অনুষ্ঠিত […]

সুবোধ তুই জেগে ওঠ চ্যাম্পিয়ন রাব্বি তার বিতর্কে ‍সুবোধকে আগামির পরিবর্তনশীল বাংলাদেশের প্রতিনিধি হিসেবে তুল ধরে।তিনি তার বিতর্কে তুলে ধরেন বাংলাদেশ একটি সম্ভাবনাময় দেশ কিন্তু বর্তমান তরুণ প্রজন্ম তাদের ভবিষ্যৎ নিয়ে বিভ্রান্ত এবং আমলারা দুর্নীতিগ্রস্ত এই ক্রান্তি অবস্থায় সুবোধ একজন প্রতিনিধিত্বশীল তরুণ যার হাত ধরে সমস্যা কাটিয়ে বাংলাদেশ এগিয়ে যাবে।প্রতিযোগিতায় প্রথম রানার্স আপ ফাহমিনা বর্ষা তার বিতর্কে সবার মাঝে সু-বোধ কে জাগিয়ে তোলার আহবান জানান। সমাজে আজ নারীর প্রতি যে নানা ধরনের সহিংসতা বিভিন্ন জায়গায় নারীকে ধর্ষন, ইভটিজিং কিংবা কালো কণ্যা জন্ম হওয়ায় বাবার মুখ কালো হওয়ায় তখন তাদের মনে সুবোধ ঘুমিয়ে থাকে। তাই বৈষম্যহীন সমাজ ও নারীর জন্য সুন্দর পৃথিবী গঠনে সবার মাঝে সু-বোধকে জাগিয়ে তুলতে হবে।

১৫-১৮ নভেম্বর জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে অনুষ্ঠিত হয় ১১তম আন্ত:বিভাগ সাংসদীয় বিতর্ক প্রতিযাগিতা ও ‘সুবোধ তুই জেগে ওঠ” এই শিরোনামে বারোয়ারি বিতর্ক প্রতিযোগিতা।“জাহাঙ্গীরনগর ইউনিভার্সিটি ডিবেট অর্গানাইজেশন” আয়োজন করে এই বিতর্ক  প্রতিযোগিতার। তাদের চ্যাম্পিয়নদের নিয়ে আজকের আয়োজন। বারোয়ারি বিতর্ক প্রতিযোগিতায় বিশ্ববিদ্যালয়ের ৩৫ জন বিতার্কিক অংশগ্রহণ করে। এই প্রতিযোগিতায় চ্যাম্পিয়ন হয় ইন্সটিটিউট অব বিজনেস এ্যাডমিনিস্ট্রেশন বিভাগের স্নাতক ৩য় বর্ষের শিক্ষার্থী মিনহাজুল আবেদিন রাব্বি। প্রথম রানার্স আপ হয় প্রাণিবিদ্যা বিভাগের স্নাতক ২য় বর্ষের শিক্ষার্থী ফাহমিনা বর্ষা। এবং ২য় রানার্স আপ হয় ইন্সিটিটিউট অব ইনফরমেশন বিভাগের জাহিদুল ইসলাম ইমন। চ্যাম্পিয়ন রাব্বি তার বিতর্কে  ‍সুবোধকে আগামির পরিবর্তনশীল বাংলাদেশের প্রতিনিধি হিসেবে তুল ধরে।তিনি তার বিতর্কে তুলে ধরেন বাংলাদেশ একটি সম্ভাবনাময় দেশ কিন্তু বর্তমান তরুণ প্রজন্ম তাদের ভবিষ্যৎ নিয়ে বিভ্রান্ত এবং আমলারা দুর্নীতিগ্রস্ত এই ক্রান্তি অবস্থায় সুবোধ একজন প্রতিনিধিত্বশীল […]

দেশের প্রথম পরিসংখ্যান উৎসব পালিত হল জাবিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিসংখ্যান বিভাগে অনুষ্ঠানটি অনুষ্ঠিত হয়।উৎসব নিয়ে ক্লাবের হেড আব ডিরেক্টরস ও পরিসংখ্যান বিভাগের চূড়ান্ত বর্ষের ছাত্র কারিমুজ্জামান সানি বলেন, উৎসবে সকাল নয়টা থেকে একটা পর্যন্ত উদ্বোধন, র‌্যালি, ও স্টাটিসটিক্যাল পোস্টার প্রেজেন্টেশন হয়। এবং বিরতি দিয়ে দুপুর থেকে প্রবলেম সলভিং কম্পিটিশন ও দেশ সেরা পরিসংখ্যানবিদদের আলোচনা শেষে সন্ধ্যা ছয়টায় সমাপ্ত হয়।

আদীব মুমিন আরিফ। ব্যাক্তিগত জীবন থেকে শুরু করে জাতীয় বিভিন্ন সিদ্ধান্ত বা নীতি গ্রহণ পরিসংখ্যান ছাড়া কল্পনা করা যায় না। পরিসংখ্যান মানুষের জীবনকে সহজ করে। যেকোন বিষয়ে দ্রত সিদ্ধান্ত গ্রহণ করতে সাহায্য করে। দেশের প্রথম পরিসংখ্যান উৎসবে পরিসংখ্যানের গুরুত্ব নিয়ে বলছিলেন দেশ সেরা পরিসংখ্যানবিদরা। ২০১০ থেকে প্রতিবছর ২০ অক্টোবর বিশ্বজুড়ে পালিত হচ্ছে বিশ্ব পরিসংখ্যান দিবস।  তারই ধারাবাহিকতায় জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের স্টাটিসটিকস লিড ক্লাবের আয়োজনে ২৭ অক্টোবর দেশের প্রথম পরিসংখ্যান উৎসব-২০১৭ অনুষ্ঠিত হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. ফারজানা ইসলাম প্রধান অতিথি হিসেবে অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন ও সুভিনিয়্যর এর মোড়ক উন্মোচন করেন। অধ্যাপক ফারজানা ইসলাম বলেন, পরিসংখ্যান বিষয়ের বিচরণ সর্বত্র। তাই দেশের প্রথম এ বিষয়ে উৎসবের আয়োজন করায় ক্লাবটিকে অসংখ্য ধন্যবাদ। বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিসংখ্যান বিভাগে অনুষ্ঠানটি অনুষ্ঠিত হয়।উৎসব নিয়ে ক্লাবের হেড আব ডিরেক্টরস ও […]

দেশের প্রথম প্রত্ন-উদ্ভিদ বিজ্ঞান গবেষণাগার বাংলাদেশে প্রত্নতাত্ত্বিক গবেষণা অনেক বছরের হলেও প্রত্ন-উদ্ভিদ ও প্রাচীন পরিবেশ গবেষণা প্রত্নতত্ত্ব বিভাগের নতুন সংযোজন। এতোদিন শুধু আবিষ্কৃত হয়েছে বাংলার হাজার বছরের প্রাচীন সভ্যতার নিদর্শন। আর এখন এই হাজার বছরের প্রাচীন মানুষের খাদ্যাভাস, তাদের জীবন ধারনের জন্য বিভিন্ন উদ্ভিদের ভূমিকা, তাদের কৃষিপদ্ধতি এবং মানুষ ও উদ্ভিদের পারষ্পারিক সহবস্থান জানা সম্ভব এই প্রত্ন-উদ্ভিদ গবেষণার মাধ্যমে। এবং বর্তমান বিশ্বের প্রধান সমস্যা জলবায়ু পরিবর্তনের বিরুপ প্রভাব থেকে রক্ষার জন্য প্রাচীন সময়ের আবহাওয়ার অবস্থা জানা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। আর এই তথ্য প্রাচীন পরিবেশ গবেষণার মাধ্যমে সম্ভব বলে এর গবেষকগন মনে করেন।

দেশের প্রথম প্রত্ন-উদ্বিদ বিজ্ঞান গবেষণাগার (প্যালিও ইথনোবোটানি এন্ড প্যালিও ইকোলজি) স্থাপিত হয়েছে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রত্নতত্ত্ব বিভাগে।বাংলাদেশ সরকারের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয় এবং হেকেপ এর সার্বিক সহযোগিতায় এর প্রাথমিক গবেষণা শুরু হয়েছে। গবেষণাগারটির তত্ত্বাবধায়নে আছেন বিভাগের শিক্ষক সহকারি অধ্যাপক মো. মিজানুর রহমান। বাংলাদেশে প্রত্নতাত্ত্বিক গবেষণা অনেক বছরের হলেও প্রত্ন-উদ্ভিদ ও প্রাচীন পরিবেশ গবেষণা প্রত্নতত্ত্ব বিভাগের নতুন সংযোজন। এতোদিন শুধু আবিষ্কৃত হয়েছে বাংলার হাজার বছরের প্রাচীন সভ্যতার নিদর্শন। আর এখন এই হাজার বছরের প্রাচীন মানুষের খাদ্যাভাস, তাদের জীবন ধারনের জন্য বিভিন্ন উদ্ভিদের ভূমিকা, তাদের কৃষিপদ্ধতি এবং মানুষ ও উদ্ভিদের পারষ্পারিক সহবস্থান জানা সম্ভব এই প্রত্ন-উদ্ভিদ গবেষণার মাধ্যমে। এবং বর্তমান বিশ্বের প্রধান সমস্যা জলবায়ু পরিবর্তনের বিরুপ প্রভাব থেকে রক্ষার জন্য প্রাচীন সময়ের আবহাওয়ার অবস্থা জানা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। আর এই তথ্য প্রাচীন পরিবেশ গবেষণার […]

নারীরা এখন অনিরাপদ! পত্রিকার পাতা উল্টালেই নারী নির্যাতন ও ধর্ষনের মত খবর যেন দিনকে দিন বেড়েই চলেছে। পিছিয়ে নেই বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাস গুলোও। উচ্চ আদালতের নির্দেশনা অনুযায়ী বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে ‘যৌন হয়রানি ও নিপীড়ন নিরোধ’ নামের একটি কমিটি থাকলেও এর কার্যকারিত নেই বললেই চলে। কর্মকর্তা, শিক্ষক থেকে শুরু করে স্থানীয় ক্যাডার, কে নেই নিপীড়কের তালিকায়!

বাংলাদেশের অনেক নারীকে এখন ঘরে ও ঘরের বাইরে নিপীড়ন-লড়াই-বৈষম্যের মধ্য দিয়ে জীবন পার করতে হচ্ছে। বর্তমান সময়ে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানও নারীরা নিরাপদ নয় বরং পাবলিক ও জাতীয়  বিশ্ববিদ্যালয় গুলোতেও এই ধরনের নির্যাতনের ঘটনা ঘটছে অহরহ। দু’ একজন ভুক্তভোগী নারী নিপীড়নের ঘটনায় প্রতিবাদী হয়ে উঠলেও তারা শিকার হচ্ছে সামাজিক হেনস্তার। যার কারণে নারীরা মুখ খুলছে খুব কম সংখ্যক। তাই পার পেয়ে যাচ্ছে অপরাধীরা। এ অবস্থায় প্রয়োজন সামাজিক সচেতনতা। এদিকে পত্রিকার পাতা উল্টালেই নারী নির্যাতন ও ধর্ষনের মত খবর যেন দিনকে দিন বেড়েই চলেছে। পিছিয়ে নেই বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাস গুলোও। উচ্চ আদালতের নির্দেশনা অনুযায়ী বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে ‘যৌন হয়রানি ও নিপীড়ন নিরোধ’ নামের একটি কমিটি থাকলেও এর কার্যকারিত নেই বললেই চলে। কর্মকর্তা, শিক্ষক থেকে শুরু করে স্থানীয় ক্যাডার, কে নেই নিপীড়কের তালিকায়! দেশের বিভিন্ন অঞ্চল […]

“তরীর” আলোকিত প্রদিপ শত বাঁধা পাঁর করেও চালিয়ে যাচ্ছেন নিজের পড়াশুনা ও শিশুদেরকে পড়ানো।ছোট বেলা থেকেই মানুষকে উপকার করার মন নিয়ে বড় হয়েছেন শফিকুল।মাধ্যমিকে পড়ার সময় থেকেই দরিদ্র ছাত্রদের জন্য ক্লাশের বন্ধুদের কাছ থেকে টাকা তুলে ব্যবস্থা করতেন বই কিনে দেয়ার।কলেজে থাকতে জড়িত হতেন নানা সামাজিক সহযোগিতামূলক কাজে। এরপর বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির পর সুযোগ আসে তরীর মাধ্যমে সুবিধা বঞ্চিত শিশুদের পড়ানোর।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস বিভাগের স্নাতকোত্তরের পরীক্ষার্থী। ২০১৩ সালের ২৬শে জানুয়ারী থেকে তরীর সাথে তার পথ চলা শুরু।বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম বর্ষের অন্যান্য শিক্ষার্থীরা যখন ভর্তির পর নানাভাবে সময় নষ্ট করে।সেখানে তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ে ক্লাশ শুরুর প্রথম দিন থেকেই যুক্ত হন তরীর সাথে।শুধু যুক্ত হয়েই থামেন নি যুক্ত করেছেন আরো অন্যান্য বন্ধুদের, উমর ফারুক ও মুমতরারিন জান্নাতকেও।দীর্ঘ চার বছর নিরলস সেবা দেয়ার পর গত ডিসেম্বর ২০১৬ পেয়েছেন তরীর পরিচালকের গুরু দায়িত্ব।শফিকুলের গ্রামের বাড়ি কুড়িগ্রাম জেলার বোগঠাঙ্গায়।নিজ জেলা থেকেই ২০০৯ সালে এসএসসি ও ২০১২ সালে এইচএসসি পাশ করার পর ভর্তি হন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস বিভাগে।তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের মওলানা ভাসানী হলের আবাসিক ছাত্র।২০১০ সালে বাবা মারা যাওয়ার পর পারিবারিক দায়িত্ব কাঁধে আসার পর এক বছর পড়াশুনায় বিরতি হয়। শত বাঁধা পাঁর করেও চালিয়ে যাচ্ছেন নিজের পড়াশুনা ও শিশুদেরকে […]

‘হারিয়ে যাচ্ছে ঐতিহ্যবাহী মৃৎশিল্প’ প্রদর্শনীতে ঘুরতে আসা বিশ্ববিদ্যালয়ের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী জান্নাতুল আক্তার যূথী বলেন, ‘আমি প্রথম দেখে বুঝতেই পারিনি এগুলো মাটি দিয়ে তৈরী। মাটি দিয়ে এত সুন্দর গহনা তৈরী করা যায় এখানে না আসলে বুঝতেই পারতামনা। অনকে ভাল লাগছে গহনা গুলো দেখে। তাই চুরি ও কানের দুল কিনেছি।’

মাটির তৈরি জিনিসপত্র গ্রামবাংলার ঐতিহ্য। এক সময়ে মাটির তৈরি জিনিসপত্রই ছিল সংসারের মূল উপাদান। যেন এসব ছাড়া সংসার জীবনে চলাই ছিল মুশকিল। কিন্তু আধুনিকতার ছোঁয়ায় হারিয়ে যেতে বসেছে নিপুন হাতের তৈরি এসব মৃৎশিল্পের জিনিসপত্র। এমনটাই বলছিলেন ‘গৃহসজ্জা’র মালিক আশিক হাসান। আশিকের এ ‘গৃহসজ্জা’র মাধ্যমে মাটির তৈরী নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্র যেমন হাঁড়ি-পাতিল, মাটির ব্যাংক, শো-পিস, গহনা, কলস, ফুলের টব, ফুলদানি, ঢাকনা, পিঠা তৈরির ছাঁচসহ নানা রকম খেলনা তৈরি করেন। এসবের মধ্যে বিভিন্ন ধরনের গহনা যেমন- চুরি, কানের দুল, গলার হার, ব্রেচলাইট, পায়ের নুপুর ইত্যাদি নিয়ে ‘পোড়া মাটিরগহনা ও বুনন চিত্র প্রদর্শনী’র আয়োজন করেন আশিক হাসান। জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যারয় সহ বাংলাদেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়, কলেজে এ প্রদর্শনীর আয়োজন করে থাকেন। কেন এই প্রদর্শনী করা হয় জানতে চাইলে ‘গৃহসজ্জা’র মালিক আশিক হাসান বলেন, ‘আমাদের এ ঐতিহ্যবাহী […]

‘সান্ধ্য আইনের বেড়াজালে রাবির ছাত্রীরা’ ক্যাম্পাসে এই কড়াকড়ির সিদ্ধান্ত ‘সান্ধ্য আইন’ বলে চালু রয়েছে। সান্ধ্য আইনের নামে ছাত্রী হলগুলোতে সন্ধ্যা ৭টার পর হলে ফেরা ছাত্রীদের কোনো কোনো ক্ষেত্রে হলের পরিচয়পত্র কেড়ে নেওয়ার অভিযোগও রয়েছে। ছাত্রীরা জানান, এসব ভোগান্তির কারণে তাদের আর্থিক, সাংস্কৃতিক, ব্যক্তিগতসহ নানা বঞ্চনার শিকার হতে হচ্ছে। যা একটি বিশ্ববিদ্যালয়ে মোটেও কাম্য নয়। কথিত এই সান্ধ্য আইন অনুযায়ী, বিশ্ববিদ্যালয়ে শীতকালে মেয়েদের হল গেট সন্ধ্যা ৬টা ৩০ মিনিটে এবং গ্রীষ্মকালে ৭টা ৩০ মিনিটে বন্ধ হয়ে যায়। আবার সকাল ৬টার আগে হলের বাইরে যাওয়ার অনুমতি নেই।

‘সান্ধ্য আইনের বেড়াজালে রাবির ছাত্রীরা’ মানব জীবন স্বাধীন। স্বাধীন ভাবে চলা একজন নাগরিকের অধিকার। বিশ্ববিদ্যালয় মুক্ত জ্ঞান চর্চার স্থান। এখানের প্রতিটি স্থানের বিচরণে একজন শিক্ষার্থী খুঁজে পাবে নতুন অভিজ্ঞতা। তা যদি সীমাবদ্ধ হয়ে পড়ে তাহলে সংকুচিত হবে তার জ্ঞানের পরিধি। পারবেনা তারা জাতির জন্য কল্যাণ বয়ে আনতে। তেমনি ‘সান্ধ্য আইনের বেড়াজালে পড়ে ভোগান্তি আর বঞ্চনার শিকার হচ্ছেন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) হলগুলোর আবাসিক ছাত্রীরা। মাগরিবের আযানের ত্রিশ মিনিটের মধ্যে তাদের হলে ঢুকে পড়ার নিয়ম রয়েছে। এরপর কেউ বাইরে থাকলে হলে ঢোকার সময় নানা ভোগান্তির শিকার হতে হচ্ছে, এমনটাই অভিযোগ ছাত্রীদের। ক্যাম্পাসে এই কড়াকড়ির সিদ্ধান্ত ‘সান্ধ্য আইন’ বলে চালু রয়েছে। সান্ধ্য আইনের নামে ছাত্রী হলগুলোতে সন্ধ্যা ৭টার পর হলে ফেরা ছাত্রীদের কোনো কোনো ক্ষেত্রে হলের পরিচয়পত্র কেড়ে নেওয়ার অভিযোগও রয়েছে। ছাত্রীরা জানান, […]